যে ভুলে ইতিবাচক বাজারেও আপনার আইটেমের দর কমে!

0
(0)

businessman-plant-money-26102136 আমরা জীবীকার তাগিদে বিভিন্ন ব্যবসা করে থাকি।সব ব্যবসায়ীরই উদ্দেশ্য থাকে লাভ করা আর লাভ দিয়ে প্রয়োজনীয় চাহিদা মিটিয়ে সুখী সমৃদ্ব জীবন গড়া।ব্যবসায়ীক উদ্দেশ্য সবার এক হলেও পরিকল্পনা ও কৌশল ভিন্ন তাই ফলাফলও ভিন্ন।অর্থ্যাৎ সবাই লাভ করতে পারে না।কেউ লাভ করে কেউ লস করে।এই লাভ লস ব্যবসার কৌশলের উপর নির্ভর করে।যেকোনো ব্যবসার সঠিক কৌশলটি সঠিক সময়ে প্রয়োগ করতে পারলে লাভ ছাড়া লস হবে না।আর সঠিক কৌশলটা যদি না জানে তাহলে লাভ তো হবেই না বরং আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হয়ে জীবন দুর্বিসহ হয়ে উঠবে।অন্যান্য ব্যবসা যেমন তেমন শেয়ার ব্যবসায় আপনাকে অবশ্যই কৌশলী হতে হবে অন্যতায় আপনি পুজি হারাবেন।কারন শেয়ার ব্যবসা হচ্ছে প্রতিযোগীতা বা লড়াইয়ের ব্যবসা।এখানে একদল হারে আরেকদল বিজয়ী হয়।তুমুল প্রতিদন্ধী পূর্ন খেলায় অংশ নিয়ে যদি খেলার কৌশলটাই আপনি না জানেন তাহলে আপনার প্রতিদন্ধী আপনাকে খুব সহজেই পরাজিত করে আর্থিক ও মানুষিক ভাবে নাজেহাল করবে।এই ব্যবসার সঠিক কৌশলটি প্রয়োগ না করতে পারলে কোটি টাকা পুজি থাকলেও লস আপনার পিছু ছাড়বে না।শেয়ার ব্যবসায়ীদের অনেককেই বলতে দেখা যায় যে, যা ক্রয় করি তা কমে আর যা বিক্রি করি তা বাড়ে! এই ধরনের যারা বলে তারা আসলেই পরাজিত।বাই সেল টাইমিং না জানার কারনে এমন হয়।আর এই সুযোগে কৌশলী ট্রেডাররা আপনাকে পেনিক দিয়ে সাপোর্ট লেভেলের প্রেগনেট আইটেমটি হাতিয়ে নেয় আর রেজিষ্টেন্স টাচ করা আইটেমটি শর্ট টাইমে অনেক প্রফিট দিবে সেই গুজব দিয়ে আপনার কাছে ডেলিভারি দেয়।মনে করেন আপনি একটি আইটেম বাই দিলেন।বাই দেয়ার পর থেকে অন্যান্য আইটেম বাড়লেও আপনারটা বাড়ে না বরং একটু একটু করে কমতেছে।আপনি ২-৪ দিন ধৈর্য্য ধরলেন।একটু একটু করে কমতে কমতে ৫-৬ দিনেই ১০% লসে পড়ে গেলেন।এবার অন্যান্য আইটেম বাড়লেও আপনার আইটেম বাড়েও না তেমন কমেও না।ভাবলেন আর কতদিন ধৈর্য্য ধরব! এবার আপনার নজর পড়বে বাজারের সবচেয়ে রানিং আইটেমটির দিকে।সবার মুখে মুখে আপনি ওই উর্ধমুখী রানিং আইটেমটির কথা শুনবেন।যেই টান শুরু করছে ১০০ যাবে ৫০০ যাবে ইত্যাদি ইত্যাদি।আপনি নিজেকে আর কন্ট্রোল করতে পারলেন না।আইটেমটি বাড়তে দেখে ভাবতে থাকেন যদি এইটা বাই দেই তাহলেতো মেচুরেট দিনেই আমার লসে পড়া আইটেমের ১০% লস রিকভার করে আবার এসে ওই আইটেমটি বাই ব্যাক করতে পারব ! পরদিন আপনি আর আগে পিছে কিছু না ভেবে ওই উর্ধমুখী আইটেমটি বাই দিলেন আর আপনার হোল্ডিং আইটেমটি ১০%-১২% লসে সেল দিলেন।অত্যন্ত পরিতাপের বিষয় এই যে,আপনি যে আইটেমটি বাই দিলেন সেই আইটেমটি রেজিষ্টেন্সে গিয়ে আপট্রেন্ড দুর্বল হয়ে পড়েছে এবং ডেলিভারির সিগন্যাল দিচ্ছে।আর আপনি অধৈর্য্য ও হতাশ হয়ে যে আইটেমটি সেল দিলেন সেই আইটেমটি সাপোর্ট লেভেল ভাঙ্গতে না পেরে সাইডওয়ে থেকে বিশাল ভলিওম পেয়ে ততক্ষনে প্রেগনেট বা গর্ভবতী হয়ে আপট্রেন্ডের আভাস দিচ্ছে।এবার আপনি যা সেল দিছেন সেটা উড়তে শুরু করল,চারদিকে শুধু আপনার সেই সেল দেয়া ইটেমের হৈ হৈ রব ১০০ যাবে ৫০০ যাবে কিন্তু আপনি থাকিয়ে থাকা ছাড়া আর কিছুই করার নেই।কারন আপনি ইমোশনাল হয়ে রেজিষ্টেন্সের ডেলিভারি আইটেম বাই দিছেন আর হতাশ হয়ে সাপোর্ট লেভেলের প্রেগনেট আইটেম সেল দিছেন।যার ফলে আপনার বাই আইটেমটির দর কমবে আর সেল দেয়া আইটেমটির দর বাড়বে।

Rate This

Average rating 0 / 5. Vote count: 0

No votes so far! Be the first to rate this post.

As you found this post useful...

Follow us on social media!