মার্কিন ট্রেজারি বন্ড নিম্নমূখীঃ ডলারের ঊর্ধ্বমূখীতা রুখে দিলো করোনা ভাইরাস

0
(0)

বৃহস্পতিবার মার্কিন ডলার নিজের অবস্থান উপরের দিকে উঠানোর জন্য বেশ কসরত করছে। অন্যদিকে ভাইরাসের আতঙ্ক ইয়েন এর পক্ষে কাজ করেছে। ইউএস 10-বছরের ইয়েল্ড (US10YT=RR) এর বেঞ্চমার্ক মাত্র 1% উপরে উঠেছে। এদিকে ফিউচার মার্কেটগুলি জুলাই এর মধ্যে ফেডারেল রিজার্ভ এর সুদের হার আরও 50 বেসিস পয়েন্টে কমানোর জন্য চেষ্টা চালাবে। গ্রিনব্যাক এশিয়াতে এগিয়ে যেতে ব্যর্থ হয়েছে। ইউরো (EUR =) স্থিতিশীল অবস্থায় $ 1.1136 তে অবস্থান করছে । National Australia Bank এফএক্স কৌশল প্রধান রে অ্যাট্রিল বলেন,” মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ইয়েল্ড এর ক্রমবর্ধমান অবনতি এবং অস্থিরতা বৃদ্ধির কারণে তাদের অবস্থান দিন দিন দূর্বল হচ্ছে। “ তিনি আরো বলেন,” আমরা যদি ধরে নেই যে Fed আগামী দুই এক মাসে আরও বেশ কয়েকবার সুদের হারে ছাড় আনতে পারে।

সামনের ১৭-১৮ মার্চের বৈঠকেও হতে পারে এমন কিছু। যদি আনে তো এরপর খুব অল্প সময়ের জন্য হয়তো মার্কিন ডলারকে ভুগতে হতে পারে।” মঙ্গলবার Fed এর জরুরি ভিত্তিতে ৫০ টি বেসিস পয়েন্টের সুদের হার হ্রাস করায় বেশিরভাগ এশিয়ান মুদ্রার বিপরীতে ডলার পিছনে পরে যায়। এবং পাঁচ মাসের মধ্যে সর্বোচ্চ নীচে 106.84 ইয়েনে নেমে আসে। ডেমোক্র্যাটিক মনোনয়ন পাওয়া প্রাক্তন ভাইস প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের নির্বাচনী প্রচারনার সাফল্যে রাতারাতি ডলারকে কিছুটা ভাল অবস্থানে নিয়ে এসেছে। আর এদিকে জাপানী মুদ্রায় বিনিয়োগে বিভিন্ন ঝুঁকির শঙ্কায় বিনিয়োগকারীরা আপাতত বিনিয়োগ থেকে দূরে আছেন। প্রতিদ্বন্দ্বী বার্নি স্যান্ডার্সের তুলনায় বাইডেনের ট্যাক্স বৃদ্ধি এবং ব্যবসায়ের উপর নতুন প্রবিধান আরোপ করার সম্ভাবনা কম বলে কথা উঠেছে। তবে করোনা ভাইরাস প্রাদুর্ভাব এর কারণে ক্রমবর্ধমান অর্থনৈতিক পতনের ব্যাপারে সবদিকে গভীর উদ্বেগ থাকার পরেও বৃহস্পতিবার ইয়েন এর মূল্য 0.2% বৃদ্ধি পেয়েছে। দিনের শেষ ট্রেডিং এর পর ডলার প্রতি এর মূল্য 107.33 এসে দাঁড়িয়েছিল। বৃহস্পতিবার Mainland China নতুন সংক্রমণ বৃদ্ধির খবর জানিয়েছে। বিশ্বজুড়ে এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুর পরিমাণ বাড়ছে। ইতালিতে সকল স্কুল বন্ধ করে দেয়া হয়েছে এবং ক্যালিফোর্নিয়ায় ভাইরাসের আক্রান্তের সংখ্যা বৃদ্ধি পাওয়ায় জরুরি অবস্থা ঘোষণা করা হয়েছে। আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিল মনে করছে ২০০৮-২০০৯ আর্থিক সংকটের পর এবারই বিশ্বের প্রবৃদ্ধি হার সবচেয়ে হবে। ব্যাংক অব ইংল্যান্ড এর গভর্নর জানিয়েছেন, ব্রিটিশ পাউন্ড রাতারাতি বেশ ভাল অবস্থানে চলে এসেছে। এবং তিনি জরুরী ভিত্তিতে সুদের হার কমানোর আগে এই ভাইরাস এর প্রকোপ সম্পর্কে আরও স্পষ্ট ধারনা নেয়ার অপেক্ষা করছেন। পাউন্ডটি সর্বশেষে $1.2873 কিনে ইউওরো প্রতি 86.51 পেন্স এ বিক্রি হয়েছে।

Rate This

Average rating 0 / 5. Vote count: 0

No votes so far! Be the first to rate this post.

As you found this post useful...

Follow us on social media!