বাজারের চলমান অবস্থায় ডে ট্রেডিং করে প্রফিটের কোনো সুযোগ নেই! শেয়ার বাজার নির্ভরশীল ট্রেডারদের অন্য লাইনে এগুতে হবে।

0
(0)

9k=আজ সপ্তাহের প্রথম দিন শেয়ার বাজারের সূচক কমেছে প্রায় ১২ পয়েন্ট।বাজারের বর্তমান আচরন হচ্ছে সূচক বাড়লে কোনো মুনাফা হচ্ছে না আবার সূচক কমলেই অল্প অল্প করে বড় ধরনের ক্ষতির মুখে পড়ছেন সাধারন বিনিয়োগকারীরা।বাজারের চলমান পরিস্থিতিতে ডে ট্রেডিং করে মুনাফা করার কোনো সুযোগ নেই।আজ যে আইটেমটির দর ২% বাড়ে পরদিনই সেই আইটেমটি ৩-৪% কমে যায়।ফলে ম্যাচুরেট তারিখে কেনা দর পাওয়াটাই মুশকিল হয়ে উঠে।২০১০ থেকে ২০১৩ সালে একদিনে ইনডেক্স ১০০-২০০ পয়েন্ট পড়লেও যেদিন ইনডেক্স ৫০-৬০ পয়েন্ট বেড়েছে ওই ২০০ পয়েন্টের লস ৫০-৬০ পয়েন্টেই রিকভার করেছে।তখন যারা মার্কেট বোঝে তারা পতন মার্কেটেও বিশাল প্রফিট করেছে।কিন্তু বাজারের বর্তমান যে অবস্থা তাতে উত্তান পতন কোনো দিকই দিয়েই প্রফিট করা সম্ভব হচ্ছে না।বিশেষ করে বর্তমান অবস্থায় ডে ট্রেডিং করে লস ছাড়া লাভ হবে না।

যারা একমাত্র ডে ট্রেডিংয়ের উপর নির্ভর্শীল তাদের কি করনীয় ঃ- শেয়ার বাজারের অনেক বিনিয়োগকারী ই আছেন যারা শুধু মাত্র শেয়ার বাজারের উপর নির্ভরশীল।তাদের অনেকেরেই শেয়ার বাজারের বিনিয়োগ ছাড়া অন্য কোনো ইনকাম সোর্স নেই।ফলে শেয়ার বাজারের মুনাফা অথবা পুঁজি ভেঙ্গে সংসার চালায়।তাদের জন্য উচিত হবে শুধু শেয়ার বাজারের দিকে না তাকিয়ে অন্যান্য ইনকাম সোর্স বের করা।

যেমন দেখবেন একজন ব্যবসায়ী কখনো একটা ব্যবসা নিয়ে বসে থাকে না।সে এক ব্যবসার পাশাপাশি আরো কয়েকটা ব্যবসা রাখে যেন উভয়দিক থেকেই ইনকাম আসে।একজন চাকরিজীবী শুধু তার চাকরীর উপর নির্ভর করে না পাশাপাশি সে ব্যবসাও করে থাকে।ফলে অর্থনৈতিকভাবে একটার ইনকাম দিয়ে আরেকটাকে সম্প্রসারন করতে পারে।অনেকেই ভাবতে পারে ব্যবসা করার পুঁজি নেই আবার চাকরী করারও যোগ্যতা নেই তাহলে অন্য ইনকাম সোর্সো করবো কিভাবে? কিভাবে করবেন সেটা বলতে গেলে পোষ্টটা অনেক লম্বা হয়ে যাবে তাই অন্য পোষ্টে বলব।আপনি হয়তঃ জানেন না যে, অনলাইনে দক্ষ অদক্ষ সব ধরনের লোকেরই চাকরী আছে।যেসব কাজ ওইসব কাজ করতে ইংলিশে দক্ষতাও লাগে না,কম্পিউটারে গভীরতাও লাগে না এবং কোনো পুঁজিও লাগে না।একজন ক্লাশ এইটের ছাত্রও অনলাইনে কাজ করে মাসে ২০-৫০ হাজার টাকা ইনকাম করতে পারে।অনলাইনে কিভাবে কি কাজ করতে হয় সেই প্রসিডিউরটা না জানার কারনে আপনারা ইনকাম সোর্স বের করতেও পারতেছেন না আর অনলাইন ইনকামকে ভূয়া মনে করে দূরে পড়ে আছেন।ইনকামের প্রসিডিউর জানবেনইবা কিভাবে? কারন যারা প্রকৃত পক্ষে অনলাইনে ইনকাম করে অনলাইনে লেখালেখি করে আপনাকে জানানোর মত ফ্রিল্যান্সারদের সময় নেই।একটা পোষ্ট লিখতে যে সময় যায় সেই সময়ে অনলাইন মার্কেট প্লেসে কাজ করলে ৫-৭ ডলার আয় করা যায়।তাহলে আপনাকে বোঝানোর জন্য তাদের সময় কোথায়? যেমন ধরুন আমার যে এই ব্লগ সাইটটি।আমি যদি মার্কেট প্লেসে গিয়ে এই সাইটটি কোনো বায়ারকে বানিয়ে দেই তাহলে সে আমাকে মিনিমাম ২০০ ডলার (১৬০০০ টাকা) দিবে।এরকম একটা সাইট বানাতে আমার সময় লাগে সর্বোচ্চ ৪৫ মিনিট।যে যেই কাজে দক্ষ অনলাইনে ওই কাজের মূল্যায়ন আছে। ডাটা এন্ট্রি থেকে শুরু করে এমন কোনো কাজ নেই যে অনলাইনে চাকরী নেই।আপনি কিছুই পারেন না শুধু ইন্টার্নেট চালাতে পারেন এটারও অনলাইনে চাকরী আছে।বেতনও কম নয় ২০-৩০ হাজার টাকা ইনকাম করা সম্ভব।অনলাইনে আপনার কাজ করতে ভালো লাগে না তাও সমস্যা নেই।আপনি কাজটি শুরু করে আপনার বন্দ্বুদের কাছে শেয়ার করুন দেখবেন তারা কাজ করে যত ইনকাম করবে আপনি কাজ না করে তাদের সমান ইনকাম পাবেন।ফেসবুকে যাদের ৩-৪ হাজার গ্রুপ মেম্বার আছে সেই সব এডমিন কাজ না করেও দৈনিক ১০-১৫ ডলার আয় করতে পারে।কিন্তু কিভাবে ইনকাম করতে হয় সেই অপশনটা না বোঝার কারনেই অঝথাই ফেসবুকে সময় কাটায়।অনলাইন ইনকাম সোর্স গুলো নিয়ে আমরা পরের পোষ্টে আলোচনা করব।আমাদের সঙ্গেই থাকুন। stockkamrul@gmail.com

Rate This

Average rating 0 / 5. Vote count: 0

No votes so far! Be the first to rate this post.

As you found this post useful...

Follow us on social media!