উত্তান পতন উভয় মার্কেট উপভোগ করার সহজ উপায়ঃইনডেক্স সিডিউলের সাথে ট্রেড টাইমিংয়ের সমন্বয়!

0
(0)

car-mechanic-working-auto-repair-service-professional-35581655 বিগত ২০১০ সাল থেকে ফেসবুক,টুইটার,গুগল প্লাস,ব্লগ,ওয়েবসাইট,পত্র-পত্রিকাসহ গনমাধ্যমে শেয়ার বাজার নিয়ে বিশ্লেষনধর্মী লেখা লেখি করে আসলেও গত ২বছর যাবত সার্বিক বাজার নিয়ে লেখনী থেকে বিরত আছি।গত ২বছর যাবত মার্কেট একটা সিডিউলের মধ্য দিয়ে উঠানামা করছে।ইনডেক্সের সিডিউলের সাথে পাল্লা দিয়ে কিছু কিছু আইটেমও নিজেদের সিডিউল তৈরী করে নিয়েছে।ওইসব আইটেম ইনডেক্সের ধার ধারেনা।ওরা নিজেদের মত করে নিজেদের সিডিউলে উঠানামা করে।ওইসব আইটেমের সিডিউলের সাথে আমার ট্রেডিং সিডিউলের সমন্বয় করে নির্ধারিত প্রফিটের পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করতে পারছি বিধায় আপাতত ইনডেক্স সহ সার্বিক বাজার নিয়ে মাথা ঘামানোর প্রয়োজন হয়নি।সে কারনেই দীর্ঘদিন যাবত বাজার পূর্বাবাস লেখা থেকে বিরত রয়েছি।ঝুকিপূর্ন/বাজে আইটেম খ্যাত হাতে গুনা কয়টি আইটেম গত ২বছরে আমাকে তথা আমার দল বলকে যে প্রফিট দিছে ইনডেক্স ১০হাজারে গেলেও হয়তঃ অন্যান্য আইটেম থেকে সেই প্রফিট পেতাম না।তাই আমার চিন্তা চেতনা ধ্যান ধারনা বিশ্লেষন সবকিছুই নির্দিষ্ট কিছু আইটেম নিয়ে ইনডেক্স নিয়ে আমার কোনো ভাবনা নেই।কিন্তু গত ২দিন যাবত বাজারের পরিস্থিতি নিয়ে কিছু একটা বলার জন্য শত শত লোক এসএমএস,ফোন ও ইমেইলে অনুরুধ করেছেন।তাদের অনুরুধেই আজ সার্বিক বাজার নিয়ে কিছু লিখার চেষ্টা করছি।আমি প্রথমেই বলছি ইনডেক্স গত ৪-৫ বছর যাবত একটা নির্দিষ্ট সিডিউলের মধ্য দিয়ে চলছে।বর্তমান পতনও এই সিডিউলের বাইরে নয়।যেকোন কাজের সিডিউল ঠিক থাকলে থাকে অস্থিতিশীল বলা যায় না।তাই ইনডেক্স যেহেতু নির্দিষ্ট নীতিমালায় সিডিউল মোতাবেক উঠানামা করছে তাই বাজারকে অস্থিতিশীল বলার সুযোগ নেই।ইনডেক্স নেগেটিভ দেখলেই যারা বাজারকে খারাপ বলে আসলে তারা বাজার সিডিউলের বিপরীতমুখী ট্রেড করে দিন দিন লুজার হচ্ছে।ট্রেন যেমন ঢাকা থেকে সিলেট এবং সিলেত থেকে ঢাকা যাওয়ার একটা নির্দিষ্ট সিডিউল রয়েছে ঠিক তেমনি শেয়ার বাজারের ইনডেক্সও আপ ডাউনের একটি সিডিউল তৈরী করেছে।আর গত ৪-৫ বছর যাবত সেই সিডিউল অনুযায়ী আপ ডাউন করছে।গত ২বছরের বাজার বিশ্লেষন করলে দেখা যায় ইনডেক্স ৪২০০ থেকে ৪৯০০ উঠানামা করছে।এই ৪২০০ থেকে ৪৯০০ উঠানামা বিশ্লেষন করে আমি একটি সূত্র আবিষ্কার করেছি।আমার সেই সূত্রটি মনে রাখলে আপনি নিজেই বাজার পূর্বাবাস জানতে পারবেন।সূত্রটি হলঃ-সর্বোচ্চ লেনদেন বাজার পতনের পূর্বাবাস এবং সর্বনিন্ম লেনদেন বাজার উত্তানের পূর্বাবাস।আপনারা গত ২বছরের ইনডেক্স পরীক্ষা নিরীক্ষা করে দেখেন উত্তানের সময় যতবারই যেদিন মাসের বা ২-৩ মাসের সর্বোচ্চ লেনদেন হয়েছে ততবারই পরদিন থেকে মার্কেট পতনে রুপ নিয়েছে।আবার পতনের সময় যতবারই যেদিন আগের ২-৩মাসের সর্বনিন্ম লেনদেন হয়েছে ততবারই পরদিন থেকে মার্কেট ঘুরে দাড়িয়েছে।সূত্রটিকে যদি সাম্প্রতিক বাজার চিত্রে প্রয়োগ করি তাহলে দেখা যায় গত ১৭ ডিসেম্বর কয়েক মাসের সর্বনিন্ম মাত্র ২৮৬ কোটি টাকা লেনদেন হয়ে ওই দিনই ৬পয়েন্ট বৃদ্বি পেয়ে মার্কেট ঘুরে দাড়ায়।সেই থেকে কারেকশনের ফাকে ফাকে ইনডেক্স এবং লেনদেন বাড়তে বাড়তে গত ২১জানুয়ারি কয়েক মাসের সর্বোচ্চ ৭২০কোটি টাকা লেনদেন হলে সূত্রানুযায়ী পরদিন থেকেই মার্কেট পতনে যায়।আমার দৃষ্টিতে মার্কেট সামনে আরো ২/১দিন হালকা পতন হয়ে ইনডেক্স ৪৫২০ এবং লেনদেন ৩০০ কোটি ছুই ছুই হলে মার্কেটের নিজস্ব সিডিউল অনুযায়ী ঘুরে দাড়াবে। বোঝতেই পারছেন মার্কেট ঘুরে দাড়ানোর সময় সন্নিকটে।অতএব মার্কেট নিয়ে অযথা পেনিক না হয়ে নিজের ট্রেডিং সিডিউলকে ইনডেক্সের সিডিউলের সাথে সমন্বয় করে আপ ডাউন উভয় মার্কেটে প্রফিট উপভোগ করার চেষ্টা করুন।

Rate This

Average rating 0 / 5. Vote count: 0

No votes so far! Be the first to rate this post.

As you found this post useful...

Follow us on social media!